আগামী সোমবার ফজর থেকে কাতারের নির্দিষ্ট সংখ্যক মসজিদ মুসল্লিদের জন্য খুলে দেয়া হচ্ছে। কাতারের মিনিষ্টি অব আওকাফ গতকাল সকল মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন এবং কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে এই সম্পর্কিত একটি সার্কূলার ইস্যু করেছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা হিসাবে দীর্ঘ দিন থেকে কাতারে সকল মসজিদ সমূহ বন্ধ রয়েছে।

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির উন্নতির প্রেক্ষিতে কাতার সরকার ৪ ধাপে সকল প্রতিবন্ধকতা উঠিয়ে দেয়ার রোড ম্যাপ ঘোষনা করে। তারই অংশ হিসাবে আগামী ১৫ জুন সোমবার থেকে কাতারের কিছু মসজিদ কেবলমাত্র ৫ ওয়াক্তি নামাযের জন্য খুলে দেয়া হবে। তারই প্রস্তুতি হিসাবে কাতারের আওকাফ এই সার্কূলার ইস্যু করে। সার্কূলারে ইমাম ও মুয়াজ্জিনদেরকে ১৩ দফা নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।যাতে মসজিদে আগত মুসল্লীদের করণীয়, ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের করণীয় নির্দেশ করা হয়েছে। ১৫ জুন সোমবার ফজর নামায থেকে শুরু হওয়া নামাযের জন্য এই নির্দেশনার সংক্ষিপ্তসার নিম্নরূপঃ

১. ইমাম ও মুয়াজ্জিন আযানের ১০ মিনিট পূর্বে মসজিদে পৌছবেন।

২. মসজিদের ভিতরের সকল দরজা ও অন্যান্য সুইস সমূহ খোলা হবে।

৩. সকল হাম্মাম, অজুখানা ও সুপেয় পানীর কুলার সমূহ বন্ধ করা হবে।

৪. মুসল্লিদের পরস্পরের মধ্যে দুই মিটার দুরত্ব বজায় রাখার বিষয় নিশ্চিত করবেন।

৫. নির্দিষ্ট সময়ে আযান প্রদান করা হবে এবং আযানের ১০ মিনিট পর এক্বামত প্রদান করা হবে।

৬. আগত মুসল্লিদের নামাযের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা মেনে চলার নসিহত করা হবে।

৭. মুসল্লিদের প্রবেশের জন্য মসজিদের বাহিরের মাত্র ১টি দরজা আযানের মাত্র ৫ মিনিট পূর্বে খুলে দেয়া হবে।

৮. মুসল্লিদেরকে মসজিদে প্রবেশ করার জন্য নিজ মুসল্লা সাথে নিয়ে আসতে হবে, মাস্ক পরিধান অবস্থায় থাকতে হবে এবং ইহতিরাজ প্রোগ্রামে গ্রীন অবস্থান করছে-তা প্রদর্শন করতে হবে। অন্যথায় কোন মুসল্লিকে মসজিদে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

৯. কোন অবস্থায়ই মসজিদের জন্য নির্ধারিত মুসল্লিদের সংখ্যার বেশী মুসল্লি প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

১০. একামতের সময়ে হলে মসজিদের বাহিরের দরজা বন্ধ করে দেয়া হবে অথবা নির্দিষ্ট সংখ্যক মুসল্লি
উপস্থিত হলেই বাহিরে গেট বন্ধ করে দেয়া হবে।

১১. নামায শেষ হওয়ার সাথে সাথে মসজিদের বাহিরের সকল দরজা খুলে দেয়া হবে এবং কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।

১২. নামায শেষ হওয়ার ৫ মিনিট পর মসজিদের সকল দরজা বন্ধ করে দেয়া হবে।

১৩. কোন মুসল্লি উপরোক্ত নিয়ম মানতে অস্বীকার করলে অথবা সহযোগিতা না করলে অথবা কোন ধরণের
কোন সমস্যা অনুভূত হলে সাথে সাথে মসজিদের দায়িত্বে নিয়োজিত নির্দিষ্ট ‘মুরাকিব’কে ফোন করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here