রহস্যে মোড়া নিউট্রন তারকা -মোজাম্মেল হক

নিউট্রন তারকা বর্তমানে জ্যোতিঃপদার্থবিদদের কাছে এক অতি আকর্ষণীয় বস্তু। এই তারকা নিয়ে এ পর্যন্ত হয়েছে প্রচুর তাত্ত্বিক গবেষণা। তবে সর্বপ্রথম ১৯২০ সালে টমাস এবং ফার্মি একটি মডেল প্রস্তাব করেন। মহাশূন্যে ব্ল্যাক হোলের পরে সবচেয়ে শক্তিশালী মহাকর্ষ রয়েছে নিউট্রন স্টারের। যদি নিউট্রন স্টার আরেকটু ঘন হয়, তাহলে এটি নিজেই একটি ব্ল্যাক হোলে রূপ নেবে। এটির পৃষ্ঠের []

রাশিয়ার প্রতিবেশী বেলারুশ মুহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম

বেলারুশের সরকারি নাম বেলারুশ প্রজাতন্ত্র। মধ্য-পূর্ব ইউরোপের একটি স্থলবেষ্টিত প্রজাতন্ত্র। তবে দেশটি অতীতে বাইলোরুশিয়া বা বেলোরুশিয়া নামে পরিচিত ছিল। এর উত্তরে ও পূর্বে রাশিয়া, দক্ষিণে ইউক্রেন, পশ্চিমে পোল্যান্ড এবং উত্তর-পশ্চিমে বাল্টিক প্রজাতন্ত্র লিথুয়ানিয়া ও লাটভিয়া। বেলারুশের মধ্যভাগে অবস্থিত মিন্স্ক রাজধানী ও বৃহত্তম নগর। অন্যান্য বড় শহরগুলোর মধ্যে আছে ব্রেস্ত, হ্রোদনা, হোমিয়েল, মোগিলেফ, ভিতেভ্স্ক এবং বাব্রুইস্ক। []

জাতীয় গল্প লেখা প্রতিযোগিতা ২০২০ পুরস্কার প্রদান

আগামীর পৃথিবীকে সাজাতে লেখক-সাহিত্যিকদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে সিরাজুল ইসলাম বাংলাদেশের সর্বাধিক প্রচারিত শিশু-কিশোর মাসিক নতুন কিশোরকণ্ঠ আয়োজিত জাতীয় কিশোরকণ্ঠ গল্প লেখা প্রতিযোগিতা ২০২০-এর পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজধানীর একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে আয়োজিত এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। দুটি গ্রুপে জাতীয় কিশোরকণ্ঠ গল্প লেখা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রচুর []

বাংলার রূপ -তৈয়বুর রহমান ভূঁইয়া

ছয়টি রঙে রাঙা আমার প্রাণের জন্মভূমি, সকাল-সন্ধ্যা জন্মভূমির অঙ্গ থাকি চুমি। গ্রীষ্মকালে তীব্র রোদে দেশটা হলো মরু, বর্ষাকালে সতেজ-সজীব নীরস থাকা তরু। জুঁই, চামেলি, কদম, কেয়া কাশফুলেরই দলে, ঋতুর রাণী রইলো মিশে পদ্ম পাতার জলে। সোনা রঙের পাকা ধানে হেমন্তেরই হাসি, খেজুর রসে, পিঠায় ভরা শীতের কাছে আসি। রঙিন ফুলে বসন্তটা কুহুর তানে থাকে, মনটা []

সাদা হীরক -শিমন রহমান

শিশির ভেজা দূর্বা ঘাসে সাদা হীরক জ্বলে খুকু মণি আপন মনে তাহার কথা বলে। কেমন করে কোথা থেকে শিশির কণা আসে, সূয্যি মামা জাগার পরে কোথায় তারা ভাসে? কোথায় তারা থাকে বসে কোথায় তাদের বাসা? কেমন করে হয়ে ওঠে সাদা হীরক খাসা।

গন্ধ-পাগল জুবায়ের হুসাইন

[গত সংখ্যার পর] সাত. সকালে দেরি করে ঘুম ভাঙলো গোয়েন্দাদের। ম্যাজমেজে শরীর নিয়ে ঘুম থেকে উঠল দুই গোয়েন্দা। আবিদের তন্দ্রা তখনও পুরোপুরি কাটেনি। আড়ামোড়া ভেঙে বলল, মা, জলদি নাস্তা দাও। বিপ্লব হেসে বলল, এই আবিদ, কী বকছো তুমি? এটা কি বাড়ি নাকি? না স্বপ্ন দেখছ? তন্দ্রা ছুটে গেল আবিদের। খাটের ওপর থেকে এক লাফে নিচে []

উন্নত চরিত্রের সন্ধানে -আমিনুল ইসলাম ফারুক

(দ্বিতীয় অংশ) মানব চরিত্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো সততা। সততাকে চরিত্রের মেরুদণ্ডও বলা যেতে পারে। সততা, ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব যেমন বৃদ্ধি করে তেমনি দল ও প্রতিষ্ঠানের উৎকর্ষতা বৃদ্ধিতে মুখ্যত ভূমিকা রাখে। সৎপথে উপার্জিত তোমার অল্প সম্পদের দামও অবৈধভাবে উপার্জিত কোটি টাকার সম্পদের থেকে বেশি। সৎলোক সাতবার বিপদে পড়লেও আবার উঠে দাঁড়ায় কিন্তু অসৎ লোক একবার বিপদে []

 

বিজয় তুমি আবু হাসনাত মুহাম্মদ সাজু

বিজয় তুমি জীবন মাঝে ভালোবাসার গান বিজয় তুমি নিয়ে এলে সুখ অফুরান। বিজয় তুমি মায়ের হাতে কুলোয় ভরা ধান বিজয় তুমি আঁধার রাতে জ্যোৎস্না মাখা চান। বিজয় তুমি আকাশ মাঝে মুক্ত পাখির ডানা বিজয় তুমি ফুল বাগানে ফুল ফুটালে নানা। বিজয় তুমি ভুলিয়ে দিলে পরাধীনতার গ্লানি বিজয় তুমি বীর বাঙালির রক্তের কাছে ঋণী।

 

কবি কাজী কাদের নওয়াজ -তনয় সালেহা

একজন কবির জগৎ কেমন? কেমন তার নিজস্ব ভাবনার পৃথিবী। কী ভাবেন কবি? কেমন করে ভাবেন! এসব প্রশ্নের জবাব পাওয়া যায় কবির কবিতা থেকে। যেকোনো কবির কবিতা পাঠ করলেই তার ভাবনার চেহারা দেখে যাই আমরা। তার জগতের সাথে পরিচয় ঘটে আমাদের। আমরা জেনে যাই কবির নিজস্ব পৃথিবীর খবর। মা কথাটি ছোট্ট অতি, কিন্তু জেনো ভাই ইহার []

শীতবুড়ি আয়িশা জান্নাত আনিসা

শীতের বুড়ি আসবে বলে সাজছে বছর ধরে, পিঠাপুলি, খেজুর-পায়েস জুটবে ঘরে ঘরে। শীতবুড়িটার নাই কি রে শীত ভাবছে বসে খোকা, এমন ভাবনা ভেবে খোকা হলো ভীষণ বোকা! শীতবুড়িটা আসে বলেই শীতটা নাকি আসে, সেই কথাটা বুঝতে পেরে আপন মনে হাসে।

 

কেশোওয়ারি পাখি সৈকত হাসান

কেশোওয়ারি পৃথিবীর সবচেয়ে হিংস্র পাখি। পাঁচ ফুট উচ্চতার বিশাল ওজনের পাখি কেশোওয়ারি। এরা উড়তে পারে না। এদের সমস্ত দেহ চুলের মতো মোটা লোমে ঢাকা থাকে। যার ফলে এদের ডানা দেখা যায় না। বর্তমানে কেশোওয়ারির তিনটি প্রজাতি টিকে আছে। তাদের শুধুমাত্র পাপুয়া নিউগিনি, উত্তর-পূর্ব অস্ট্রেলিয়া এবং তার আশপাশের কিছু দ্বীপে পাওয়া যায়। কেশোওয়ারি লম্বায় ৫ ফিট []

 

খুকুর শীত শাজাহান কবীর শান্ত

থরথরিয়ে কাঁপছে শরীর কাঁপছে খুকুর দাঁত এক ঘুমেতে যায় যে খুকুর একটা বড়ো রাত। সকালবেলা ভোরে উঠে মক্তবে যায় ছুটে পড়াশুনায় বেশ, পাখি ডাকা শীতের ভোরে কিচিরমিচির করে যেন জেগে তোলে দেশ। উত্তরে বয় শীতল হাওয়া কাঁপায় আরো শীত, মায়ের কোলে খুকু তখন গায় খুশিতে গীত।

নাবিলের ফিরে আসা -আলতাফ হোসাইন রানা

হাঁটি হাঁটি পা পা করে কৈশোরের অনেকগুলো দিন পার করে জীবনের উচ্ছল উজ্জ্বল সময়ে পা রাখে নাবিল। জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত যেন এখন নাবিলের কাছে চঞ্চল ঝর্ণাধারা। ভীষণ ডানপিটে ছেলে। সারাক্ষণ চাদশী তরুণ সংঘ আর সঙ্ঘের সদস্যদের নিয়ে যেন তার কাজ। খেলাধুলায় মেতে থাকলেও দোষ ছিল না। তা না করে কাঠবিড়ালির মতো কার গাছে পেয়ারা বড় []

 

 

বিশ^ মাঝে শীর্ষ হবো আহসান হাবীব ইমরোজ প্রতিভা : উদ্ভাবন ও উন্নয়নের প্রভা প্রতিভা মানে কী? অভিধান চষে আমরা চারটি অর্থ পাই; এক) তীক্ষèবুদ্ধি দুই) উপস্থিত বুদ্ধি বা প্রত্যুৎপন্নমতিত্ব তিন) নির্মাণক্ষমবুদ্ধি বা সৃজনীশক্তি চার) পরিবেশ ও পরিস্থিতিতে প্রায়োগিক জ্ঞান বা প্রজ্ঞা। তোমাদের সময় আছে? এ নিয়ে আমরা আরেকটু গবেষণা করবো কি? কী জন্য বলছি? কারণ []

 

ঐক্য জুড়ি ওয়াহিদ আল হাসান

বছর ঘুরে বছর আসে সুখের কাঙাল বারো মাসে বিজয় পাখির পাই না দেখা বাংলাদেশের ভাগ্যাকাশে। বিজয় কেতন সোনার হরিণ কবে পাবো তারে দেখা কেউ জানি না চাচ্ছি শুধু যদি থাকে ভাগ্যে লেখা। সোনার দেশে মন্দ নজর ফেলছে কিছু দেশের নেতা সাবধান আর সচেতন হই কী যে হবে জানে কে তা! ভেদাভেদ সব মুছে ফেলে ভাইয়ে []

 

শীতের অপরূপ বাংলাদেশ -রুমান হাফিজ

আমাদের দেশে ছয়টি ঋতুর মধ্যে শীতকাল অন্যতম। হেমন্তের পর আগমন করে শীতকাল। ঋতু বিভাজনে পৌষ ও মাঘ মাস শীতের জন্য বরাদ্দ হলেও প্রকৃতিতে শীত থাকে তিন-চার মাস। সাধারণত ইংরেজি নভেম্বর মাস থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত শীত অনুভূত হলেও মধ্য ডিসেম্বর থেকে মধ্য ফেব্রুয়ারি এই দুই মাস শীতকাল। শীত আমাদের প্রকৃতির বৈচিত্র্যময় রূপের একটি। রাতে পাতায় []

 

বাংলাদেশের গ্রাম -জাকারিয়া আজাদ

বাংলাদেশের সবুজ ছবি নেইতো সবার জানা চক্ষু মেলে দেখতে কারো নেইতো কোন মানা। সবুজ সবুজ বুক বিছানা ঘাস কিষাণ ছেলের ঘাম ঝরানো চাষ শস্য ফলায় যত্নে বারো মাস। রাখালিয়ার আপন মনে গান জুড়িয়ে যায় পল্লী মায়ের প্রাণ পান্তা ভাতে সকাল কাটে ভালো পায় ফিরে পায় জীবন যুদ্ধের আলো শিশির ফোঁটায় সতেজ থাকে দেহ মুক্তো হাওয়ায় []

 

বিজয়ের ভালোবাসা ভালোবাসার বিজয় -ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ

বিজয় এবং ভালোবাসা। দুটো শব্দই খুব প্রিয়। সকলের কাছেই প্রিয়। তোমার কাছে, আমার কাছে। আব্বু-আম্মু সবার কাছে। দোলনায় শুয়ে থাকা ছোট্ট গুলুমুলু বাবুটাও পছন্দ করে। পছন্দ করে ফোকলা দাদুও। বাবুটাকে লাল রঙের কোন খেলনা দাও, গপ করে ধরে নেবে। ওকে ভালোবাসা দাও, মিষ্টিমুখে ফুলের মতো মজা করে হাসবে। ওর পছন্দের জিনিসটা দিয়ে দাও, খুশিতে টগবগ []

 

বিজয় -জাকির আবু জাফর

চতুর্দিকে সবুজ ঘেরা নেই সবুজের শেষ দিগন্তময় ছড়িয়ে আছে আমার বাংলাদেশ। কোথাও বিশাল ধানের জগৎ কোথাও নদীর পাড় বনের বুকে বন পাখিদের অবাধ কারবার। কোথাও ফুলের আনন্দ মুখ কোথাও স্বাদের ফল মন ভরানো ঝিম প্রকৃতি উদাত্ত সচ্ছল। নীল আকাশের পাঁজর ছুঁয়ে উড়ছে মেঘের কেশ এই তো আমার ছায়া মায়ার অবাক বাংলাদেশ! গাঁয়ের পাশে গাঁ ছড়ানো []

 

আমাদের কথা

প্রাণপ্রিয় বন্ধুরা, আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছো তোমরা? আশা করি সবাই ভালো আছো। সুস্থ আছো এবং নিরাপদে আছো। আবার এলো আমাদের মাঝে বিজয়ের মাস, ডিসেম্বর। ডিসেম্বর মানেই তো আশা, স্বপ্ন ও ভালোবাসা জাগানিয়ার মাস। অশেষ স্মৃতির মাস। সদা জাগ্রত চেতনার মাস। আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার মাস। আনন্দ ও বিস্ময়ের মাস। বিস্ময় বলছি এজন্য যে অনেক []

 

রহমের দৃষ্টি

সকাল থেকেই সাহিলের মন আজ ভীষণ ঝরঝরে। অনেক দিন পর, নানাবাড়ি যাচ্ছে সে। সাথে আব্বু-আম্মু, ভাই-বোন সবাই। নানা-নানুর প্রিয়মুখ বারবার ভেসে উঠছে চোখের পর্দায়। ছোটবেলার আদুরে স্মৃতিগুলো হাতছানি দিয়ে ডাকছে কেবল। আচ্ছা, নানাবাড়ির স্মৃতি এত মধুর- এত আবেগমাখা হয় কেন? সাহিল এ ঘর থেকে ও ঘরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। একবার আম্মুর কাছে, একবার আপুর কাছে। সবাই []

 

উজ্জ্বল মুখ

আজ আমরা জান্নাতের কোন্ গল্প শুনছি? মুহসিনা আপুর কাছে জানতে চাইল মুনীরা। আপু বললেন, দেখি কী নিয়ে বলা যায়। চলো, আয়েশা-মালিহার কাছে গিয়ে বসি। আয়েশা-মালিহা সাজু-গুজু নিয়ে ব্যস্ত! ভীষণ ব্যস্ত! আপু কাছে যেতেই সালাম দিলো। আর কিছুটা লজ্জাও পেল যেন। আপু মুনীরাকে বললেন- গল্পের বিষয় পেয়ে গেছি! আজ আমরা কথা বলব জান্নাতিদের রূপ-লাবণ্য ও পোশাক-পরিচ্ছদ []

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here